1. »
  2. ফিচার

পাহাড়ি মিষ্টি পানে, চাষির মুখে হাসি আনে

বুধবার, ৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০৩:০৬ পিএম | আপডেট: বুধবার, ৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০৩:০৬ পিএম

পাহাড়ি মিষ্টি পানে, চাষির মুখে হাসি আনে

বেশি মুনাফা হওয়ায় পাহাড়ি জেলা খাগড়াছড়িতে পান চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে প্রান্তিক চাষিরা। জেলার দীঘিনালা ও পানছড়ির মাইনী ও চেঙ্গী নদীর অববাহিকায় সমতল ভূমিতে বাড়ছে পানের চাষ। পানের গুণগত মান ভালো হওয়ায় স্থানীয় বাজারের চাহিদা মিটিয়ে পাইকারদের মাধ্যমে এসব মিষ্টি পান জেলার বাইরেও যাচ্ছে। চলতি মৌসুমে ভালো ফলনে হাসি ফুটেছে চাষিদের মুখে।

জেলার দীঘিনালার তেভাংছড়া, নৌকাছড়া এবং পানছড়ির চেঙ্গী এলাকা ঘুরে দেখা যায়, গ্রামজুড়ে অর্থনীতির হাতছানি দিচ্ছে সারি সারি ‘পানের বরজ’। স্থানীয় বেশিরভাগ মানুষই পান চাষের সাথে জড়িত। চাষিরা বিক্রির জন্য পানের বিড়া সাজাচ্ছেন। তবে কৃষি বিভাগ থেকে কোন সহযোগিতা না পাওয়ার অভিযোগ রয়েছে কৃষকদের। কোন কর্মকর্তা বা মাঠ পরিদর্শক পরিদর্শনেও আসেন না। কর্মকর্তাদের সহযোগিতার অভাবে রোগ-বালাইয়ের প্রতিকার পাচ্ছেন না চাষিরা। এতে কখনো কখনো লোকসান গুনতে হচ্ছে।

চাষিরা জানান, বিশ শতক জমিতে পান চাষে ৭০-৮০ হাজার টাকা খরচ হয়। একটি সুস্থ পান গাছ থেকে ৮০-১৪০টি পর্যন্ত পান পাওয়া যায়। মানভেদে প্রতি বিড়া পান ১০০-১৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ভালো ফলন এবং বাজারে দাম থাকলে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় হবে।

পানচাষি সমন্ত চাকমা জানান, এখানকার পান বিক্রি করার জন্য বাজারে নিতে হয় না। গ্রামে এসেই বেপারিরা কিনে নিয়ে যায়। সাপ্তাহিক হাটের দিন পান তোলার রীতি থাকলেও পাইকারি ব্যবসায়ীরা প্রতিদিনই পান নিয়ে যাচ্ছে। পৌষ মাস পর্যন্ত এ পান সংগ্রহ চলবে।

নৌকাছড়ার মিলন চাকমা জানান, সার, জৈব সার, কীটনাশক না দিলে পানের বরজ নানা রোগে আক্রান্ত হয়। তাই পান চাষের সম্প্রসারণে সরকারি সহযোগিতা দাবি করেন তিনি।

পানের পাইকারি ব্যবসায়ী সুমন দে জানান, সমতলের বিভিন্ন জেলায় পাহাড়ের মিষ্টি পানের ব্যাপক কদর রয়েছে। ফলে মহেশখালী ও বাঁশখালীর পানের উপর নির্ভরতা অনেকাংশে কমেছে।

খাগড়াছড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মর্ত্তুজ আলী জানান, পাহাড়ের মাটি ও আবহাওয়া পান চাষের উপযোগী। পানের পাতায় মড়কের কারণে চাষিরা ক্ষতির সম্মুখীন হয়। সঠিক পরিচর্যা করলে কৃষক বেশি লাভবান হবে।

/ডি

আর্কাইভস সংবাদ

আ.লীগের জন্ম মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে: শেখ হাসিনা
আ.লীগের জন্ম মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে: শেখ হাসিনা
দুর্নীতির আসামিরা মাটির নিচে থাকলেও খুঁজে বের করতে হবে: হাইকোর্ট
দুর্নীতির আসামিরা মাটির নিচে থাকলেও খুঁজে বের করতে হবে: হাইকোর্ট
কেরানীগঞ্জে আগুন: দগ্ধ হয়ে আরও ৩ জনের মৃত্যু
কেরানীগঞ্জে আগুন: দগ্ধ হয়ে আরও ৩ জনের মৃত্যু
বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে ‘পকেট মাঙ্কি’ পরিবারে নতুন ২ অতিথি
বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে ‘পকেট মাঙ্কি’ পরিবারে নতুন ২ অতিথি
প্রথম ধাপে ১০ হাজার ৭৮৯ রাজাকারের তালিকা প্রকাশ
প্রথম ধাপে ১০ হাজার ৭৮৯ রাজাকারের তালিকা প্রকাশ
মহান বিজয় দিবসে আ.লীগের কর্মসূচি
মহান বিজয় দিবসে আ.লীগের কর্মসূচি
দ্বিতীয় দিনের বিক্ষোভে উত্তাল পশ্চিমবঙ্গ
দ্বিতীয় দিনের বিক্ষোভে উত্তাল পশ্চিমবঙ্গ
তরুণ সংগীতশিল্পী পৃথ্বী রাজ আর নেই
তরুণ সংগীতশিল্পী পৃথ্বী রাজ আর নেই
এবার চাঁদপুরে আযহারীর মাহফিল বন্ধ
এবার চাঁদপুরে আযহারীর মাহফিল বন্ধ
কীর্তনখোলায় লঞ্চের সঙ্গে সংঘর্ষে ডুবে গেছে কার্গো
কীর্তনখোলায় লঞ্চের সঙ্গে সংঘর্ষে ডুবে গেছে কার্গো
আন্তর্জাতিক চাপে মিয়ানমার
আন্তর্জাতিক চাপে মিয়ানমার
রাজাকারের তালিকা প্রকাশ রোববার
রাজাকারের তালিকা প্রকাশ রোববার
সেনাপ্রধানকে নিয়ে আদালতের রায়ে যা বললেন ইমরান
সেনাপ্রধানকে নিয়ে আদালতের রায়ে যা বললেন ইমরান
বুয়েটের ৯ ছাত্রকে হল থেকে আজীবন বহিষ্কার
বুয়েটের ৯ ছাত্রকে হল থেকে আজীবন বহিষ্কার
বিদ্যুতের দাম ২৩ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব পিডিবির
বিদ্যুতের দাম ২৩ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব পিডিবির
১০ বছর নাগাদ যুক্তরাজ্য ভেঙে যেতে পারে: জরিপ
১০ বছর নাগাদ যুক্তরাজ্য ভেঙে যেতে পারে: জরিপ
কম দামে পেঁয়াজ কিনে বেশি দামে বিক্রি করায় জরিমানা
কম দামে পেঁয়াজ কিনে বেশি দামে বিক্রি করায় জরিমানা
বাংলাদেশ ব্যাংকের নেতৃত্বে ব্যাংকিং কমিশন গঠন ফলদায়ক হবে না: টিআইবি
বাংলাদেশ ব্যাংকের নেতৃত্বে ব্যাংকিং কমিশন গঠন ফলদায়ক হবে না: টিআইবি
ট্রাম্পের অভিশংসন তদন্ত: আগামী সপ্তাহ থেকে গণশুনানি শুরুর ঘোষণা
ট্রাম্পের অভিশংসন তদন্ত: আগামী সপ্তাহ থেকে গণশুনানি শুরুর ঘোষণা
সিপিইসি নিয়ে মার্কিন উদ্বেগ নাকচ করল পাকিস্তান
সিপিইসি নিয়ে মার্কিন উদ্বেগ নাকচ করল পাকিস্তান
যোগদানের ৪ দিনের মাথায় টাকাসহ আটক সাবরেজিস্ট্রার
যোগদানের ৪ দিনের মাথায় টাকাসহ আটক সাবরেজিস্ট্রার
জাবি ছাত্রলীগ সম্পাদকের পদত্যাগ
জাবি ছাত্রলীগ সম্পাদকের পদত্যাগ
প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়েছে ‘বুলবুল’
প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়েছে ‘বুলবুল’
ক্রেডিটকার্ড ব্যবহারকারীদের সুখবর দিল বাংলাদেশ ব্যাংক
ক্রেডিটকার্ড ব্যবহারকারীদের সুখবর দিল বাংলাদেশ ব্যাংক
মামলা মোকাবেলা করতে জাতিসংঘ আদালতে যাচ্ছেন সুচি
মামলা মোকাবেলা করতে জাতিসংঘ আদালতে যাচ্ছেন সুচি
প্রথম আলো সম্পাদকের বিরুদ্ধে রাহাতের বাবার মামলা
প্রথম আলো সম্পাদকের বিরুদ্ধে রাহাতের বাবার মামলা
প্রধানমন্ত্রীকে পেয়ে ওরা ভালো খেলবে ভেবেছিলাম: সৌরভ
প্রধানমন্ত্রীকে পেয়ে ওরা ভালো খেলবে ভেবেছিলাম: সৌরভ
পরিচালক ফাহমির সঙ্গে মিথিলার অন্তরঙ্গ ছবি ভাইরাল
পরিচালক ফাহমির সঙ্গে মিথিলার অন্তরঙ্গ ছবি ভাইরাল
দুইদিনে ২৭ ফিলিস্তিনি আটক করল ইসরাইলি সেনারা
দুইদিনে ২৭ ফিলিস্তিনি আটক করল ইসরাইলি সেনারা
ট্রেন চালকের দক্ষতায় বাঁচলো শত প্রাণ
ট্রেন চালকের দক্ষতায় বাঁচলো শত প্রাণ